আশ শেফা মধুঘর

৪ টি সাধারন অসুখ, শীত এলেই যেসব হয়ে ওঠে ভয়ঙ্করঃ পর্ব-১

<img src="topinfo_bg.png" alt="">
পর্বঃ- ১:  এ্যাজমা বা হাঁপানী
৪ টি সাধারন অসুখ, শীত এলেই যারা হয়ে ওঠে ভয়ঙ্করঃ

১. অ্যাজমা

২. বিবিধ চর্মরোগ

৩. ডায়রিয়া (বিশেষত শিশুদের) ও

৪. নাক-কান-গলার অসুখ।

তাই এ সময়ে সুস্থ থাকতে শরীরের বাড়তি যত্নের পাশাপাশি কিছু ক্ষেত্রে বাড়তি সর্তকও থাকতে হয়।

আসুন জেনে নিই শীতকালীন এসব রোগগুলোর লক্ষন ও প্রতিরোধ/ নিয়ন্ত্রনে কি করণীয়ঃ

১. এ্যাজমা বা হাঁপানিঃ

এটি হলো ফুসফুসের শ্বাসনালীর প্রদাহ জনিত একটি অসুখ। এটি একটি দীর্ঘস্থায়ী ফুসফুসের রোগ যা দ্বারা বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় ১০% মানুষ সরাসরি প্রভাবিত। হাঁপানি বা অ্যাজমা জাতীয় শ্বাসকষ্টের রোগ শুধু শীতকালীন রোগ নয়, তবে শীতের প্রকোপে এটি অনেকাংশে বেড়ে যায়।

এ্যাজমায় আক্রান্ত ব্যক্তিদেরঃ

১. ফুসফুসের এয়ারওয়েগুলি ফুলে যায় এবং স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সংকীর্ণ হয়ে যায়,

২. শ্বাসনালী সরু হয়ে যায়,

৩. শ্বাসনালীতে প্রচুর শ্লেষ্মা সৃষ্টি করে,

৪. নিয়মিত কাশি থাকে,

৫. বুকে ভারী অনুভূত হয়,

৬. সাইনাসে ব্যথা ও জ্বালা,

৭. মাথা ব্যাথা এবং

৮. সর্বোপরি রোগীর পক্ষে সঠিক ও পরিতৃপ্তি সহকারে শ্বাস নেওয়া বেশ কস্টদায়ক হয়ে যায়।

এ রোগের প্রভাবে রোগীরঃ

১. শ্বাসকষ্ট হয়।

২. অত্যন্ত দ্রুত শ্বাস নিতে হয়।

৩. একটানা কাশি থাকে।

৪. কথা বলতে অসুবিধা হয়।

৫. ঘামযুক্ত এবং ফ্যাকাশে মুখমন্ডল।

৬. বুক টান টান এবং ব্যাথা অনুভূত হয়।

এ্যাজমা বা হাঁপানির কারণঃ

কারন অনেক হতে পারে। সংক্ষিপ্তে বলা যায়-

১. শারিরীক স্থূলত্ব/ অতিরিক্ত ওজন একটি প্রধান কারণ হতে পারে।

২. বংশগত কারণ। যদি বাবা-মা বা উভয়ের উভয়েরই হাঁপানি হয় তবে বাচ্চার হাঁপানি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

৩. হাঁপানির রোগীর সাথে রক্তের সম্পর্ক থাকা।

৪. ধূমপান।

৬. পরোক্ষ ধূমপান হাঁপানিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে।

প্রাথমিক ভাবে এর আক্রমণ ছোটখাটো হিসাবে শুরু হতে পারে তবে গোড়া থেকে সঠিক পরিচর্যা না করা গেলে এটি বিপজ্জনক হয়ে উঠে। অ্যাজমা একবার হলে এর ঝুঁকি মোকাবেলা করতে হয় সারা জীবনই, তবে একে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে এর জটিলতা বা ঝুঁকি থাকে না বললেই চলে।

করণীয়ঃ
ক) জরুরী প্রাথমিক করনীয়ঃ

১. রোগীকে শুইয়ে রাখা যাবে না।

২. সোজা হয়ে বসে শান্ত থাকার চেষ্টা করতে হবে।

৩. প্রতি ৩০ থেকে ৬০ সেকেন্ডে একটি  ইনহেলার থেকে একটি ডোজ নিতে হবে।

৪. নাক দিয়ে শ্বাস নিয়ে, মুখের মাধ্যমে শ্বাস ফেলাতে হবে।

৫. পেটে হাত রেখে নাক দিয়ে শ্বাস ফেলাতে হবে।

৮. চিকিৎসককে কল করতে হবে।

খ) অন্যান্য করনীয়ঃ

প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকার ব্যবহার করে উপশম পাওয়া যাবে। যেমনঃ

১. ক্যাফেইন গ্রহণঃ

ক্যাফইনের থিওফিলিনের সাথে অনেক মিল রয়েছে।  থিওফিলিন একটি ব্রোঙ্কোডিলিটর ড্রাগ যা হাঁপানির রোগীদের ফুসফুসে শ্বাসনালী চালু করতে ব্যবহৃত হয়।  ওষুধের সাথে এর মিলগুলির কারণে, ক্যাফিন একটি ভাল ঘরোয়া প্রতিকার হতে পারে যা হাঁপানির লক্ষণগুলি সহজ করতে সহায়তা করতে পারে। কফি, চা, কোকো এবং বিভিন্ন কোলা পানীয়তে ক্যাফিন পাওয়া যায়। গরম পানীয় এছাড়াও এয়ারওয়ে পরিস্কার করতে সহায়তা করে। ভাল অনুভব করার জন্য গরম চা বা কফি পান করা যেতে পারে।

২. একটি নেবুলাইজার থেকে মধু মিশ্রিত ইউক্যালিপটাসের তেলের বাষ্পে শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করা, বাষ্প স্নান নেয়াঃ

বাষ্প স্নান প্রায়শই অনুনাসিক এবং বুকের ভিড় দূর করতে ব্যবহৃত হয়।  বাষ্প চিকিৎসা হাঁপানির জন্য চিকিৎসা নয় তবে অবশ্যই আপনার অবস্থার উন্নতি করতে পারে।  বাষ্প স্নানগুলি শ্বাসনালীতে আর্দ্রতা সরবরাহ করে, জমে থাকা শ্লেষ্মা থেকে মুক্তি পেতে এবং আরও স্মুথলি শ্বাস নিতে দেয়।

এবং সর্বোপরি,

৩. মধুর ব্যবহারঃ

আপনার হাঁপানির চিকিৎসার জন্য যদি আপনি বিকল্প ওষুধের সন্ধান করেন তবে আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনে মধুকে নিত্যসঙ্গী করতে পারেন। হাঁপানির জন্য মধু অন্যান্য ব্যয়বহুল প্রচলিত ওষুধের চেয়ে ভাল চিকিৎসা।

হাঁপানির আক্রমণ থেকে রক্ষা করতে মধু যেভাবে সহায়তা করেঃ

মধুর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট বৈশিষ্ট্যগুলি হাঁপানির জন্য দায়ী এমন সাধারণ সর্দি এবং ফ্লু থেকে রক্ষা পেতে আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।  মধু বুকের কফ পরিষ্কার করে। মধুর মধ্যে ইথেরিয়াল তেল এবং নিজস্ব অ্যালকোহলিক বৈশিষ্ঠ্য ধীরে ধীরে গলার শ্লেষ্মা পরিষ্কার করে।  মধুর বিভিন্ন খনিজ এবং ভিটামিন উপাদান যেমন ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, সেলেনিয়াম এবং অ্যামিনো অ্যাসিড ফুসফুসের শ্বাসনালী থেকে বাধা রোধ করতে সহায়তা করে।  মধু ব্রঙ্কিয়াল টিউবগুলির ঝিল্লিগুলিকে প্রশান্ত করতে সহায়তা করে।

বিশ্বজুড়ে গবেষকরা বেশ কয়েকটি গবেষণা করেছেন যা হাঁপানির চিকিৎসার ক্ষেত্রে মধুর চিকিৎসাগত মানটি প্রমাণ করার চেষ্টা করা হয়েছে এবং ফলাফল মিশ্র হয়েছে। একটি গবেষণায় মধুকে বেশিরভাগ কাশি দমনকারীর মূল উপাদান ডেক্সট্রোমথোরফানের সাথে তুলনা করা হয়েছে। রাত্রে কাশির তীব্রতা এবং ফ্রিকোয়েন্সি হ্রাস করতে প্রাকৃতিক ঔষধ হিসেবে মধু শীর্ষে। আরেকটি গবেষণায় গবেষকরা খরগোশের হাঁপানির জন্য হাঁপানি চিকিৎসা হিসাবে এরোসোলাইজড মধু পরীক্ষা করে। গবেষণার  ফলাফল ইতিবাচক ছিল, যদিও এটি এখনও মানুষের উপর পরীক্ষা করা হয়নি।

সহজ কিন্তু বেশ কার্যকর কিছু হাঁপানির ঘরোয়া প্রতিকার আছে যা মধু দ্বারা শীতকালে শীতের প্রতিকার হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। মধু গলা ব্যথা প্রশমিত করা এবং কাশি প্রতিরোধে ব্যবহার করা যায়। কাশি হাঁপানির একটি উদ্দীপক যা এর লক্ষণ আরও খারাপ করে দিতে পারে। এ কারণে শীতের সময় এ্যাজমার রোগীকে কাশির ব্যাপারে সতর্ক হওয়া উচিত। শোবার সময় ২ চা চামচ মধু খেলে মধুর মাধুরী লালা গ্রন্থিগুলিকে আরও বেশি লালা উৎপাদন করতে উদ্রেক করে। ফলে এটি কাশির স্বাচ্ছন্দ্য দিয়ে শ্বাসনালীকে লুব্রিকেট করতে পারে।  পাশাপাশি মধু ব্রঙ্কিয়াল টিউবগুলিতে প্রদাহ হ্রাস করতে পারে (ফুসফুসের অভ্যন্তরে শ্বাসনালী) এবং শ্বাস প্রশ্বাসের পক্ষে রোগীর শ্বাস প্রশ্বাস ব্যাহত করে তোলে এমন শ্লেষ্মা দুর করতে সহায়তা করে।

হাঁপানি নিরাময়ের জন্য মধু ব্যবহারের সর্বোত্তম উপায়গুলো নীচে দেওয়া হলঃ

ক. মধু এবং পানি:

মধু এবং পানির মিশ্রণ শ্বাসনালীর টিউবগুলি থেকে শ্লেষ্মা সরিয়ে দেয় এবং হাঁপানি সীমাবদ্ধ করে। এক চা চামচ মধু ৪ আউন্স হালকা উস্ন গরম পানির সাথে মেশান (ফুটন্ত গরম পানি নয়)। তারপর এই মিশ্রণটি দিনে দু’বার বা তিনবার ব্যবহার করুন।

খ. মধু এবং দারুচিনি:

দারুচিনি ও মধু হাঁপানির চিকিৎসা করার ক্ষেত্রে একটি শক্তিশালী সমাহার। দারুচিনি ও মধুর অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্যগুলি শ্বাসযন্ত্রের ব্যবস্থায় ব্যাকটিরিয়া এবং ছত্রাকের বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। এই মিশ্রণটি অন্যান্য মিশ্রণের তুলনায় অধিক দক্ষতার সাথে হাঁপানির সাথে লড়াই করে।

আধা চা চামচ দারুচিনি গুঁড়োর সাথে ১ চা চামচ মধু অথবা ১/২ চা চামচ দারচিনি গুঁড়ো এক চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে এবং প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার আগে এই মিশ্রণটি প্রতিদিন গ্রহণ করুন। মধু এবং দারুচিনি গলা থেকে ক্লেচি সরিয়ে দেয় এবং আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

গ. মধু এবং লেবু:

ভিটামিন সি ইমিউন সিস্টেমের দুর্দান্ত জোরদার এজেন্ট হিসাবে কাজ করে। লেবু ভিটামিন সি এর একটি বড়ো ধরনের উৎস, এছাড়াও এটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস এবং অ্যান্টি-সেপটিক বৈশিষ্ট্যগুলি নিয়ে গঠিত। মধু এবং লেবু পানীয় দিয়ে একটি স্বাস্থ্যকর দিন শুরু করা যায়।

এক গ্লাস হালকা গরম পানিতে আধা লেবু মিশিয়ে তিন চা চামচ মধু যোগ করে ধীরে ধীরে পান করুন। লেবুর রসে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা প্রতিরোধ ব্যবস্থা শক্তিশালী করতে পারে এবং শ্লেষ্মা দূর করতে সহায়তা করতে পারে। কয়েক দিনের মধ্যে শ্লেষ্মা সম্পূর্ণরূপে পরিষ্কার করার জন্য প্রতিদিন সকালে এটি গ্রহন করুন।

ঘ. মধু এবং লবঙ্গ:

প্রথমে দুই কাপ জল সিদ্ধ করুন এবং তাতে ৬-৭ টি লবঙ্গ দিন। মিশ্রণটি ৫ মিনিটের জন্য সিদ্ধ হতে দিন। তারপর স্বাভাবিক তাপমাত্রায় ফিরিয়ে এনে তাতে চার টেবিল চামচ মধু যোগ করুন।  এটা দিনে দুবার পান করুন, একবার ঘুমাতে যাওয়ার আগে এবং সকালে একবার।

ঙ. মধু ও আদাঃ

আদা হাঁপানিসহ বিভিন্ন রোগের জন্য এক অনন্য প্রাকৃতিক চিকিৎসা। আদা শ্বাসনালির প্রদাহ কমাতে এবং শ্বাসনালি সংকোচন রোধে সাহায্য করে। এক কাপ ফুটন্ত পানির মধ্যে সমপরিমান লেবু, আদার রস ও মধু মিশিয়ে অল্প কিছুক্ষণ জ্বাল দিয়ে মিশ্রণটি রোজ সকাল ও সন্ধ্যায় পান করলে উপকার পাওয়া যায়। কাঁচা আদা লবণ দিয়ে মিশিয়ে খেলেও অ্যাজমায় উপকার মেলে।

চ. মধু ও রসুনঃ

রসুনের মধ্যে কিছু নির্দিষ্ট মেডিকেল গুণ যেমন অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। হাঁপানির ক্ষেত্রে, শ্বাসনালীর আশেপাশের অঞ্চলগুলি ফুলে যায়। রসুন এই প্রদাহ হ্রাস করতে সাহায্য করে, হাঁপানির লক্ষণগুলি হ্রাস করে। আপনার খাবারে রসুন এ্যাড করুন।

বিশ শতকের মাঝামাঝি থেকে রসুনকে অ্যান্টিবায়োটিকের সঙ্গে তুলনা করা হয়। রসুন ও মধু যখন একসঙ্গে মেশানো হয়, তখন এর গুণ বেড়ে যায় আরও বেশি। মধু আর রসুন একসঙ্গে মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে খেলে নানা উপকারের পাশাপাশি শরীর ঝরঝরে থাকবে এবং ক্লান্তি কাবু করতে পারে না। একটি মাঝারি মাপের রসুনের তিন-চারটি কোয়া কুঁচি করে নিন। এবার তাতে এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি প্রতিদিন সকালে খালি পেটে খান।

ছ. মধু ও কাঁচা হলুদঃ

অনেকের অ্যালার্জেন প্রবণতা থাকে। বিভিন্ন ধরণের অ্যালার্জির বিকাশ হাঁপানির লক্ষণগুলি আরও খারাপ করতে পারে। হলুদ একটি শক্তিশালী অ্যান্টি-অ্যালার্জিক বৈশিষ্ট্যমন্ডিত হিসাবে পরিচিত। হিস্টামাইন প্রদাহের কারণ, হলুদের এমন প্রভাব রয়েছে যা হিস্টামাইন প্রদাহ বন্ধ করতে পারে। এটি হাঁপানির লক্ষণগুলি উপশম করতে এবং হাঁপানির আক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করে। প্রতিদিন হলুদ দিয়ে আপনার খাবার রান্না করুন।

সকালবেলা কাঁচা হলুদ বেটে তার থেকে এক টেবিল চামচ রস আলাদা করে সমপরিমান মধু মিশিয়ে খেয়ে নিন।

আপনার হাঁপানির অসুস্থতার আরও ভালভাবে পরিচর্যা করার জন্য এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলি অধ্যবসায়ের সাথে অনুসরণ করুন।  মধুর আরোও উপকারিতা কী কী তা জেনে নিন।

আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী এ্যাজমার চিকিৎসাগুলিতে এভাবে মধু একটি ভাল সংযোজন হতে পারে। তবে প্রেসক্রাইবড ওষুধ গ্রহন এবং জীবনযাত্রার সামঞ্জস্যের সাথে সঠিকভাবে চিকিৎসা না করার হলে এটা অত্যন্ত গুরুতর হয়ে উঠতে পার। আর গুরুতর সমস্যার ক্ষেত্রে একজনকে অবশ্যই ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে।

৪. পাশাপাশি আরও করনীয়ঃ

হাঁপানির জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলো নিজের জীবনধারা পরিবর্তন:

ক. ধূমপানের অভ্যাস থাকলে এখনই বন্ধ করুন।

খ. বাইরে অ্যালার্জেনের সংখ্যা বেশি হলে বাড়ির ভিতরে থাকতে দিয়ে অ্যালার্জেনের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন। ঘরে কন্ডিশনার ব্যবহার করন, যাতে আপনি জানালা না খুলে আপনার ঘরের স্বাবাবিক বায়ুপ্রবাহ বজায় রাখতে পারেন।

গ. আপনার এয়ার কন্ডিশনার, পিউরিফায়ার বা হিউমিডিফায়ারগুলির ফিল্টার নিয়মিত পরিবর্তন করুন।

ঘ. আপনার বাড়িকে যতটা সম্ভব পরিষ্কার এবং অ্যালার্জেন মুক্ত রাখুন।

ঙ. শীতে পর্যাপ্ত গরম জামা-কাপড়ের বন্দোবস্ত করুন। ঘরে পর্যাপ্ত রোদের আলো প্রবেশের ব্যবস্থা করুন। বিশেষ করে শোবারঘরটি উষ্ণ রাখার চেষ্টা করুন।

চ. আপনার ডায়েটে পরিবর্তন করুন। হাঁপানি রোগীদের জন্য কোনও নির্দিষ্ট ডায়েট নেই তবে আপনার ডায়েটে কয়েকটি উপাদানকে বাদ দেওয়া এবং অন্তর্ভুক্তি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনতে পারে।  অতিরিক্ত ওজন হাঁপানির লক্ষণগুলি প্রভাবিত করে এবং ট্রিগার করতে পারে।  আপনার ডায়েটে প্রচুর ফলমূল এবং শাকসবজি অন্তর্ভুক্ত করুন।  আপনার ফুসফুসের এয়ারওয়েজের চারদিকে প্রদাহ কমাতে ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এবং বিটা ক্যারোটিন, ওমেগা-৩ সমৃদ্ধ ফলমূল ও শাকসব্জি আহার করুন।

যদি কোনও নির্দিষ্ট খাবার আপনার লক্ষণগুলি আরও খারাপ করে দেয়, তবে তার একটি তালিকা তৈরি করুন এবং সেগুলি এড়িয়ে চলুন।

ছ. যোগব্যায়াম এবং মননশীলতার অনুশীলন কাজে দেবে অনেকখানি। যোগ ব্যায়ামের উপকারিতা বহুগুণে। আপনি যদি হাঁপানির উপসর্গ থেকে মুক্তি পেতে চান তবে নিশ্চিত করুন যে আপনি প্রতি দিন যোগব্যায়াম করছেন।  যোগব্যায়াম শ্বাস প্রশ্বাস ও আপনার ফুসফুসকে অধিক শক্তিশালী করতে এবং আপনার সামগ্রিক ফিটনেসকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করবে। এমন কিছু যোগ পোজ আছে যা আপনার গলা এবং বুকের কার্যক্ষমতাকে অধিক শক্তিশালী করে তুলতে সহায়তা করে।

সম্ভব হলে প্রতিদিন ধ্যান করুন এবং আপনার মন এবং শরীরের উপর ফোকাস বাড়ান।  যোগব্যায়াম এবং ধ্যান থেকে শ্বাস এবং স্ট্রেস নিয়ন্ত্রণের উপর ফোকাস আপনাকে সহজেই শ্বাস নিতে অনেক সহায়তা করবে।

জ. হাঁপানির আক্রমণটি আপনার ওপর কি দ্বারা/ কীভাবে ট্রিগার করে তা খুজে বের করুন। এটা জানা গুরুত্বপূর্ণ যাতে আপনি সেগুলি এড়াতে পারেন এবং আক্রমণের সম্ভাবনা হ্রাস করতে পারেন।

ট্রিগার অনুসন্ধানের জন্য একটি ডায়েরি রাখার চেষ্টা করুন। আপনার লক্ষণগুলি যখন আপনি অনুভব করেন সেগুলি সম্পর্কে লিখুন। যেসব কাজ, খাবার বা লক্ষণগুলি দ্বারা হাঁপানির টান ওঠে বলে মনে হয় সেগুলি নোট করুন। আপনি কোথায় ছিলেন এবং হাঁপানি ওঠার আগে আপনি কী করছেন, আপনার ইনহেলারটি কতবার ব্যবহার করেছেন, আদৌ করেন কিনা ইত্যাদি সকল বিবরণ লিখে রাখুন। এটি আপনাকে এবং আপনার ডাক্তারকে আরও কার্যকরী উপায়ে আপনার হাঁপানির লক্ষণগুলি শনাক্ত করার মাধ্যমে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনে সহায়তা করবে।

এ্যাজমা রোগীদের কিছু কমন ট্রিগার:

বায়ূ দূষণ।

মাথার চুল।

পোষা প্রানীর লোম।

ফুলের পরাগ।

জ্বলন্ত ঘাস বা কাঠের ধোঁয়া।

অ্যাসিড রিফ্লাক্স (পেট অ্যাসিড খাবারের পাইপে ফিরে প্রবাহিত হয় এবং এসিডিটি সৃষ্টি করে)।

নির্দিষ্ট সুগন্ধি।

তামাক সেবন।

ধূলা।

ছাই।

তেলাপোকা।

সাইনাস অ্যালার্জি এবং সংক্রমণ।

খারাপ আবহাওয়া (বজ্রপাত, উচ্চ আর্দ্রতা, বাতাসের গুণমান)।

ইত্যাদি।

আপনি আপনার অ্যাজমার ট্রিগারগুলো জেনে সতর্কভাবে চলুন। শীতের আগেই চিকিৎসককে দেখিয়ে ইনহেলার বা অন্যান্য ওষুধের ডোজ সহ আশ শেফার মধুকে নিত্যসঙ্গী করে নিন। পাশাপাশি কখন আপনার ওষুধ খাবেন সে সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুসরণ করুন।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ

ক. অনেকের কিন্তু মধু অ্যালার্জি থাকতে পারে।  আপনার যদি মৌমাছির স্টিং বা মৌমাছি পরাগের অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া থাকে তবে আপনার সম্ভবত মধু এড়িয়ে চলা উচিত। মধু যে ধরনের অ্যালার্জির লক্ষণ তৈরি করতে পারে:

১. কাশি

২. গিলতে অসুবিধা

৩. চুলকানি

৪. ত্বকের নীচে ফোলা

৫. হুইজিং

৬. শ্বাস নিতে সমস্যা

খ. বেশিরভাগ লোকের জন্য, ছোট থেকে মাঝারি মাত্রায় খাওয়া মধু নিরাপদ।  আপনার যদি হার্টের বা হজমের ব্যাধি থাকে, যদি আপনি আপনার হৃদয় বা স্নায়ুতন্ত্রের জন্য অ্যান্টিবায়োটিক বা ঔষধ গ্রহণ করে থাকেন তবে মধু ব্যবহারের আগে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেয়া উচিত।

গ. ১২ মাসের কম বয়সী শিশুদের দু এক চামচের বেশী মধু দেওয়া উচিত নয়। শিশুদের মধ্যে বোটুলিজমের ঝুঁকি অত্যন্ত গুরুতর হয়ে দেখা দিতে পারে।  যদি আপনার ডায়াবেটিস হয় তবে সচেতন থাকুন যে মধু আপনার রক্তে অতিরিক্ত শর্করার কারণ হতে পারে। প্রতি দু চামচ মধুর জন্য এক কাপের সমপরিমান ভাত বা শর্করা বর্জন করতে হয়।

মধুর চিকিৎসা সম্পর্কিত আরও তথ্য পাবেন এখানেঃ

১.
মধু ও শারীরিক সুস্থতা > টপিক:শারীরিক সুস্থতায় মধু গুণাগুণঃ

পর্ব-০১: https://www.facebook.com/102914111160597/posts/164428901675784/

পর্ব-০২: https://www.facebook.com/102914111160597/posts/167357614716246/

২.
মধু ও স্বাস্থ্য > টপিক:সাধারন জ্বর, ঠান্ডা, কাশি প্রতিরোধে মধুর ঔষধি গুণঃ

https://www.facebook.com/102914111160597/posts/153922509393090/

আশ শেফার মধু- বাংলাদেশের সেরা মধুঃ

আশ শেফা আপনার জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুধু খাঁটি মধুই সংগ্রহ করে না, মধুর সর্বোচ্চ মানও নিশ্চিত করে। তাই আশ শেফা মধুঘরের মধু নিঃসন্দেহে খাঁটি তো বটেই, পাশাপাশি মানের দিক থেকেও দেশ সেরা। আশ শেফার অনলাইন স্টোরে বিভিন্ন ধরণের মধু রয়েছে।  এখান থেকে বাংলাদেশের যে কোনো প্রান্ত হতে নিশ্চিন্তে খাঁটি মধু সংগ্রহ করতে পারেন। খাঁটি স্বাস্থ্যকর মধুর ক্রয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য আশ শেফার মধুর সম্পর্কে আরও যে কোনও বিস্ততারিত তথ্যের জন্য অনুগ্রহ করে আশ শেফা মধুঘরের সাথে 01919442385 নাম্বারে বা অনলাইনে ashshefa.com এ যোগাযোগ করুন।

সবাইকে ধন্যবাদ। সকলের নীরোগ স্বাস্থ্য কামনায় সদা আপনার পাশেই

আশ শেফা মধুঘর

[ আগামী পর্বে থাকবেঃ বিবিধ চর্মরোগ নিয়ে কথা। ]

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Call Now Button