আশ শেফা মধুঘর

মধু এবং ব্যাকটেরিয়া, একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা

মধু এবং ব্যাকটেরিয়া, একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণা

“Honey seems especially indicated when wounds become infected or fail to close or heal. It is probably even more indicated on the wounds left by laparoscopic surgery to remove cancer.”
-FAISAL RAUF KHAN, M.D., NATIONAL HEALTH SERVICE TRUST, U.K.

ভূমিকাঃ

উনিশ শতকের শেষভাগ থেকেই সায়েন্টিস্টরা জানতে পেরেছিলেন যে ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক এবং ভাইরাসের মতো অণুজীবগুলির সংক্রমণ হলো অনেকগুলি অসুস্থতার মূল কারন। আর তখন থেকেই প্রাথমিক চিকিৎসক এবং লোক চিকিৎসকরা ব্যাকটিরিয়ার সংক্রমণ জনিত চিকিৎসায় মধুর নিরাময়ের দক্ষতা দেখে অবাক হতেন বটে, কিন্তু ১৮৮২ সালের আগে তারা কখনই এর অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলির স্বীকৃতি দিতে পারেন নি। মধু তাদের কাছে কেবল একটি কার্যকর প্রতিকার হিসাবেই পরিচিত ছিল।

১৮৮২ সালে ডাচ বিজ্ঞানী ভ্যান কেটেল তার নিজের প্রথম গবেষণার কথা জানানোর পর থেকে উপর্যুপরি গবেষনার মাধ্যমে বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায় মধুর অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলি সম্পর্কে এক শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে নিত্য নতুন তথ্য জানতে পেরেছিলো। দুর্ভাগ্যক্রমে,মধুর এরকম শক্তিশালী থেরাপিউটিক এজেন্ট হওয়ার সঠিক কারণগুলি এখন অবধি তত নিবিড়ভাবে গবেষনা করা হয়নি। আগ্রহের এই অভাবের একটি বড় কারণ হল মধু একটি নন-পেটেন্টেবল পদার্থ যা উৎপাদন এবং ব্যবহারের জন্য খুব সস্তা। বেশিরভাগ লোক চিকিৎসাজনিত মধুর জন্য স্থানীয় কৃষকদের বাজার বা প্রাকৃতিক খাবারের দোকানে সহজেই ছুটে যেতে পারে। বাংলাদেশের বড় বড় ওষুধ সংস্থাগুলি কিংবা লোকাল বিউটি কসমেটিকস উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান মধু দ্বারা প্রস্তত এন্টিব্যাকটেরিয়াল ক্রীম, মধুর ব্যন্ডেজ বা বিউটি ক্রিম ইত্যাদি সম্পর্কে আগ্রহী নয়। তারা সাধারণত প্রথাগত চর্চায় মধু সম্পর্কিত পণ্যগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য অতি সামান্যই  আর্থিক উৎসাহ দেখায়। নতুন ওষুধ বিকাশের জন্য মেডিকেল কলেজগুলিতে এবং অন্যান্য গবেষণা সুবিধাগুলিতে দেওয়া গবেষণার অর্থের বেশিরভাগই বিভিন্ন ওষুধ সংস্থাগুলি থেকে আসে। গবেষকরা সাধারণত মধুর মতো সহজ এবং সাশ্রয়ী কিছুর গবেষনার জন্য তহবিল পান না। আর যারা এই ক্ষেত্রে গবেষণা করেছেন (এটা খুবই কম, বেশিরভাগই ব্যাক্তিগত উৎসাহে..তবুও) তারা সাধারণত সরকারের কাছ থেকে তেমন কোনন তহবিল পান না। কেউ কেউ মধু শিল্পের প্রতিনিধিত্বকারী বিসিক এর মতো সংস্থার কাছ থেকে সামান্য অনুদান পান তবে তা মধু গবেষনার জন্য নয়, বরং মৌচাষের জন্য।

অ্যান্টিবায়োটিকের সাথে তুলনা করা গেলে মধু অত্যন্ত সস্তা। তাই,মধু চিকিৎসা সম্পর্কে গবেষনা করে বা না করেই অনেকে ঘরোয়াভাবে মধু দিয়ে নিজের চিকিৎসা করিয়ে নেন। এইসব ঘরোয়া চিকিৎসাগুলি বৃদ্ধি পেলে সেটা ফার্মাসিউটিক্যাল শিল্প, হাসপাতাল,চিকিৎসক, ব্যয়বহুল ওষুধ প্রস্তকারী প্রতিষ্ঠান,জটিল চিকিৎসা পদ্ধতিগুলির প্রবর্তক ও বিপননকারী এবং ব্যয়বহুল হাসপাতালগুলির জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আরেকটি কারন হল জাতীয় স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট এর মতো সরকারী সংস্থাগুলি ফার্মাসিউটিক্যাল শিল্প এবং চিকিৎসক লবি দ্বারা প্রভাবিত,এ কারনে মধু সংক্রান্ত গবেষনার বিকাশ করা খুব কঠিন। এই লিখাটিতে উপস্থাপিত বেশিরভাগ গবেষণা নিউজিল্যান্ড,অস্ট্রেলিয়া,কানাডা এবং যুক্তরাজ্যের মতো অন্যান্য দেশে হয়েছে। সেখানে বড় ওষুধ সংস্থাগুলি জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা নীতির উপর কমই প্রভাব ফেলেছে বলে এটা সম্ভব হয়েছে।

যা হোক এখানে আমরা দেখতে পাব যে নির্দিষ্ট স্বাস্থ্য সমস্যার বিস্তৃত বর্ণালীতে চিকিৎসার জন্য মধু কতটা কার্যকরী হতে পারে।

মধু: ব্যাকটেরিয়ার একটি ব্রড-স্পেকট্রাম কিলারঃ

বিগত কয়েক দশক বা তারও বেশি সময় ধরে, বিশ্বজুড়ে গবেষকরা মধু কীভাবে নিরাময় করে কেবল তাই আবিষ্কার করেননি, এটিও সনাক্তও করেছিলেন যে মধু ব্যাকটিরিয়ার ২৫০ টিরও বেশি ক্লিনিক্যাল স্ট্রেনকে (অনুজীব) হত্যা করতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে অ্যালকালিজেনস ফ্যাকালিস, সিট্রোব্যাক্টর ফ্রুন্ডেই, এসচেরিচিয়া কোলি, হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি, এন্টারোব্যাক্টর এয়ারোজিনেস, সালমোনেলা এন্টারিডিস, সিউডোমোনাস অ্যারুগিনোসা, অ্যাকিনেটোব্যাক্টর ক্যালকোসেসিটাস, ক্লিবিসিয়েলা নিউমোনিয়া এবং ভ্যান্ট্রোসাইমিসিন (এগুলো সবই ব্যাকটেরিয়া)। সবচেয়ে মজার বিষয় হ’ল যে সর্বাধিক খাঁটি মধু MRSA কে কার্যকরভাবে হত্যা করতে পারে। এটা এমন একটি সুনির্দিষ্ট “সুপারবাগ” যা ২০০৫ সালে আমেরিকায় ৯,০০০ টিপ্রাণঘাতী সংক্রমণ এবং ১৮,৬৫০ জনের মৃত্যুর জন্য দায়ী ছিল। [ সূত্রঃ R. M. Klevens et al., “Invasive Methicillin-resistant Staphylococcus aureus Infections in the United States,” The Journal of the American Medical Association 298 (October 17, 2007): 1763–71. ] MRSA হলো মেথিসিলিন-প্রতিরোধী স্টাফিলোকক্কাস অ্যারিয়াস সংক্রমণ যেটি এক ধরণের স্ট্যাফ ব্যাকটিরিয়ার কারণে ঘটে যেটি সাধারণ স্টাফ ব্যাকটিরিয়ার একটি উপগোষ্ঠী (প্রায় ৪০ শতাংশ) অ্যারিয়াস ব্যাকটিরিয়াম যা পেনিসিলিন এবং এ সম্পর্কিত ওষুধ সহ অ্যান্টিবায়োটিকগুলির বিরুদ্ধে প্রতিরোধী। যদিও এই MRSA বেশিরভাগ অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে এমন বেশ কয়েকটি ব্যাকটেরিয়াগুলির মধ্যে একটি,তবে এটিই বর্তমানে সাধারন সংক্রমণের জন্য বেশিরভাগই দায়ী হিসাবে চিহ্নিত। আর এই ব্যাকটেরিয়াটি সাধারনত একটি হাসপাতালের সেটিংয়ে সমৃদ্ধ হয়, (বিশেষ করে আইসিইউ/সিসিইউ ইউনিটে) যেখানে বেশিরভাগ লোকই সংক্রামিত হয়ে থাকে। আর এটা জনসাধারনের অজানা যে দেশীয় হাসপাতালগুলির বেশীরভাগ আইসিইউ/সিসিইউ ইউনিট গুলো জীবানুর একপ্রকার ভাগাড়-ই বলা চলে। এই হাসপাতাল-অধিগ্রহণ করা MRSA সংক্রমণে আক্রান্ত রোগীর মারা যাওয়ার সম্ভাবনা সাধারন সংক্রমনের রোগীদের চাইতে প্রায় সাতগুণ বেশি।

নিম্নলিখিত ব্যাকটিরিয়ার প্রজাতি এবং এ সম্পর্কিত রোগগুলি মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্রিয়াকলাপের প্রতি অতি- সংবেদনশীল বলে প্রমাণিত হয়েছেঃ

প্যাথোজেন / পরীক্ষা ও সংক্রমণের কারণঃ

ব্যাসিলাস অ্যানথ্রাকিসঃ অ্যানথ্রাক্স,
কোরিনেব্যাক্টেরিয়াম ডিপথেরিয়াঃ ডিপথেরিয়া
এসেরিচিয়া কোলিঃ ডায়রিয়া,
সেপটিসেমিয়াঃ মূত্রনালীর সংক্রমণ, ক্ষত সংক্রমণ,
হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জিঃ কানের সংক্রমণ, মেনিনজাইটিসঃ শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণ, সাইনোসাইটিস,
নিউকোনিয়া ক্লিবিসিলাঃ নিউমোনিয়া,
লিস্টারিয়া মনোকসাইটসঃ মেনিনজাইটিস,
মাইকোব্যাকটেরিয়ামঃ যক্ষ্মা,
পাস্তেরেলা মাল্টোসিডাঃ সংক্রামিত প্রাণীর কামড়,
প্রোটিয়াসঃ সেপটিসেমিয়া, মূত্রনালীর সংক্রমণ, ক্ষত সংক্রমণ,
সিউডোমোনাস এরুগিনোসাঃ মূত্র এবং ক্ষত সংক্রমণ,
সালমোনেলাঃ ডায়রিয়া,
সালমোনেলা কলেরা-সুইসঃ সেপটিসেমিয়া
সালমোনেলা টাইফিঃ টাইফয়েড
সালমোনেলা টাইফিমিউরিয়ামঃ ক্ষত সংক্রমণ
সেরিটিয়া মার্সেসেন্স সেপটিসেমিয়াঃ ক্ষত সংক্রমণ
শিগেলাঃ আমাশয়
স্ট্যাফিলোকক্কাস অরিয়াসঃ ফোঁড়া,
কার্বুনসেস, ইমপিটিগোঃ ক্ষত সংক্রমণ
স্ট্রেপ্টোকোকাস ফ্যাকালিসঃ মূত্রনালীর সংক্রমণ,
স্ট্রেপ্টোকোকাস মিটানসঃ দাঁতের কেরিজ,
স্ট্রেপ্টোকোকাস নিউমোনিয়াঃ কানের সংক্রমণ, জ্বর, বাত জ্বর, স্কারলেট জ্বর, গলাব্যথা, ক্ষত সংক্রমণ,
ভিবিরিও কলেরাঃ কলেরা

[উৎস: ই ডাব্লিউ. নেস্টার, এন্ড এ. এল। মাইক্রোবায়োলজি, দ্বিতীয় সংস্করণ (নিউ ইয়র্ক: হল্ট, রাইনহার্ট এবং উইনস্টন, ১৯৭৮]।

জীবাণুনাশক হিসাবে মধুঃ

ক্রমবর্ধমান বৈজ্ঞানিক পরিক্ষানিরীক্ষাগুলি দেখায় যে বেশিরভাগ চিকিৎসার ব্যবহারে মধুর কার্যকারিতা এটির অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল কার্যকলাপের কারণে। মধুর ব্যাকটিরিয়াঘটিত ক্রিয়াকলাপের পাশাপাশি এর ব্যাকটিরিওস্ট্যাটিক ক্রিয়াকলাপের অনেকগুলি প্রতিবেদন রয়েছে যেখানে দেখা যায় যে মধু ব্যাকটিরিয়াকে বিনষ্ট না করে প্রকৃতপক্ষে এর বৃদ্ধিকে  বাধা দেয়। মধুর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ক্রিয়াকলাপগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, মধু অনেকগুলি মারাত্মক সংক্রমণের কারন হিসেবে বিবেচিত ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাকের প্রজাতির বিস্তৃতি রোধ করে কিংবা মেরে ফেলে।

স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে কোন ক্ষত নিজে থেকেই নিরাময় করবে। তবে ক্ষত যদি ব্যাকটিরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে যায়, তবে সে নিজে থেকে নিরাময়ের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। ব্যাকটেরিয়া আহত টিস্যুগুলিকে খেয়ে ক্ষতে বহুগুণ হয়ে ওঠে এবং আরও টিস্যুর ক্ষতি করে। ক্ষতটি গন্ধযুক্ত হতে শুরু করে এবং এতে পুঁজ জমে। এই পুঁজটি মৃত শ্বেত রক্ত কোষ দ্বারা গঠিত, যা ব্যাকটেরিয়াগুলিকে মেরে ফেলার এবং সংক্রমণ নিরাময়ের জন্য দেহের প্রচেষ্টার অংশ। মধু এই সংক্রামক ব্যাকটিরিয়াগুলো মেরে ক্ষতকে নিরাময়ে সহায়তা করে।

মধুতে চারটি প্রধান বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এসব সংক্রামক ব্যাকটেরিয়া নির্মূল করতে সহায়তা করে: ১. অসমোসিস বা অভিস্রবন ক্ষমতা ২. উচ্চ অ্যাসিডিটি, ৩. হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড ক্রিয়াকলাপ এবং ৪. বিভিন্ন ধরণের ফাইটোকেমিক্যাল যা মৌমাছি এবং তারা যে গাছগুলি থেকে নেকটার সংগ্রহ করে, সেখান থেকে প্রাপ্ত।

মধুর অসমোসিস বা অভিস্রবন ক্ষমতাঃ

যখন মধু একটি ক্ষতে প্রয়োগ করা হয় তখন এটি শুকনো স্পঞ্জের মতো কাজ করে যা তরল শোষন করে। এটি অসমোসিস নামক একটি প্রক্রিয়া। অসমোসিসের কারণে, মধু আক্রান্ত ক্ষত থেকে তরল দূরে সরিয়ে দেয়। এটি ব্যাকটেরিয়াগুলিকে মেরে ফেলতে সহায়তা করে, কারণ ব্যাকটিরিয়াগুলির বৃদ্ধির জন্য তরল প্রয়োজন।

জার্মানীর বন বিশ্ববিদ্যালয় এর গবেষক আর্ন সাইমন, মৌমাছি গবেষণা ইনস্টিটিউট (সেল, জার্মানি) এবং ইউনিভার্সিটি অব ওয়েইকাটোর প্রতিবেদন অনুসারে: “মধু অ্যান্টিবায়োটিক এর থেকে আলাদাভাবে কাজ করে, যা ব্যাকটেরিয়ার কোষের দেয়ালে আক্রমণ করে বা ব্যাকটেরিয়ার অন্ত্রকোষীয় বিপাকীয় পদ্ধতিতে (কোষের মধ্যকার একধরনের কেমিক্যাল রিয়্যাকশন) বাধার সৃস্টি করে। মধু হাইড্রোস্কোপিক, অর্থাৎ এটি পরিবেশ থেকে আর্দ্রতা বের করে দেয় এবং এটি ব্যাকটেরিয়াকে ডিহাইড্রেট করে। কারণ মধু হলো শর্করার একটি স্যাচুরেটেড (বা সুপারস্যাচুরেটেড) দ্রবণ, মধুর ৮৮ শতাংশ হ’ল ফ্রুকটোজ এবং গ্লুকোজের মিশ্রণ। মধুতে পানির পরিমাণ ওজন অনুসারে সাধারণত ১৫-২৫ শতাংশ থাকে। পানির অণুগুলির সাথে এই চিনির অণুগুলির এক দৃড় মিথস্ক্রিয়ার ফলে অণুজীবরা বেঁচে থাকার জন্য খুব কমই পানি পায়।

মধুঃ স্বাস্থ্যের জন্য কম pH ধারন করেঃ

কোন দ্রবনে ক্ষারত্বের স্টান্ডার্ড পরিমাপ pH (Potential of Hydrogen) হিসাবে প্রকাশ করা হয়।  ২৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড (৭৭° ফাঃ) জলীয় দ্রবণগুলিকে 7 এর চেয়ে দিয়ে এ্যাসিডিক হিসেবে, আর 7 এর চেয়ে বেশি pH হলে ক্ষারীয় হিসাবে বিবেচিত হয়।

মধু খুব অম্লীয়। এর pH ৩ থেকে ৪ এর মধ্যে, যা কমলা বা আঙুরের রসের তুলনায় প্রায় একই pH। বেশিরভাগ ধরণের ব্যাকটেরিয়া pH স্তর ৭.২ থেকে ৭.৪ এর মধ্যে বিকশিত হয় এবং তারা মধুর ৪.০ pH এর নীচে বাঁচতে পারে না।

মধুর কম পানির ক্রিয়াকলাপটি একটি ক্ষত শুকিয়ে ফেলার কাজ করতে পারে, তবে এটিই সব নয়। মধুর অসমোটিক ক্ষমতা ক্ষতের টিস্যু ও প্লাজমা বা লসিকা থেকে তরল বের করে দেয় যা ক্ষতটিকে ঢেকে রাখে। এটি এনজাইম গ্লুকোজ অক্সিডাইসকে সক্রিয় করে, যা মধুকে হাইড্রোজেন পারক্সাইড তৈরি করতে সক্ষম করে, ব্যাকটিরিয়া বৃদ্ধি রোধে এবং প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর ক্ষেত্রে যেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডঃ

হাইড্রোজেন পারক্সাইড হ’ল মধুর ক্ষত নিরাময় ক্ষমতার আরেকটি রহস্য। অতিবেগুনী আলো আর্দ্রতার উপস্থিতিতে অক্সিজেনে আঘাত করলে বায়ুমণ্ডলে হাইড্রোজেন পারক্সাইড তৈরি হয়। এটি যখন পানির সংস্পর্শে আসে তখন অক্সিজেনের এই অতিরিক্ত পরমাণুটি খুব সহজেই বিভক্ত হয়। পানি (H2O) অক্সিজেনের অতিরিক্ত পরমাণুর সাথে একত্রিত হয়ে হাইড্রোজেন পারক্সাইড (H2O2) হয়ে যায়।
একটি শক্তিশালী অক্সিজেনেটর এবং অক্সিডাইজার হিসাবে পরিচিত হওয়া ছাড়াও হাইড্রোজেন পারক্সাইডের একটি বিশেষ গুণ হ’ল এর পানি এবং অক্সিজেনের মধ্যে সহজেই পচে যাওয়ার ক্ষমতা। হাইড্রোজেন পারক্সাইড অন্যান্য পদার্থের সাথে সহজেই প্রতিক্রিয়া দেখায় এবং ব্যাকটিরিয়া, ছত্রাক, পরজীবী, ভাইরাস এবং এমনকি কিছু ধরণের টিউমার কোষগুলিকে মেরে ফেলতে সক্ষম হয়। হাইড্রোজেন পারক্সাইড আমাদের দেহের অনেক প্রাকৃতিক প্রক্রিয়াতে জড়িত। অক্সিজেনেটর হিসাবে, এটি সারা শরীর জুড়ে রক্ত এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সিস্টেমে অল্প পরিমাণে অক্সিজেন সরবরাহ করতে সক্ষম। হাইড্রোজেন পারক্সাইড কেবল পরিমিত পরিমাণে অক্সিজেন উৎপাদন করে দেহকে অক্সিজেনেট করে না; অক্সিডেটিভ এনজাইমগুলি উদ্দীপিত করার জন্য এটির একটি অসাধারণ ক্ষমতাও রয়েছে। অক্সিডেটিভ এনজাইমগুলি অন্য পদার্থের রাসায়নিক উপাদানগুলিকে (ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়ার মতো) নিজেরাই পরিবর্তন না হয়ে পরিবর্তন করাতে পারে। কোষগুলিকে আরও অক্সিজেন সরবরাহ করার পরিবর্তে হাইড্রোজেন পারক্সাইডের উপস্থিতি প্রাকৃতিক সেলুলার অক্সিডেটিভ প্রক্রিয়াগুলিকে বাড়িয়ে তোলে এবং অক্সিজেন যা পাওয়া যায় তা ব্যবহার করার জন্য দেহের ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন যে আমাদের প্রতিরোধ ব্যবস্থা সঠিকভাবে কাজ করার জন্য হাইড্রোজেন পারক্সাইড অবশ্যই উপস্থিত থাকতে হবে। দেহের যে কোষগুলি সংক্রমণের সাথে লড়াই করে (গ্রানুলোসাইট হিসাবে পরিচিত শ্বেত রক্ত কোষের শ্রেণি) ক্ষতিকারক পরজীবী, ব্যাকটিরিয়া, ভাইরাস এবং ছত্রাকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের প্রথম লাইন হিসাবে প্রাকৃতিকভাবে হাইড্রোজেন পারক্সাইড তৈরি করে। হাইড্রোজেন পারক্সাইড হরমোন নিয়ন্ত্রক এবং প্রোটিন, শর্করা, চর্বি, ভিটামিন এবং খনিজ বিপাকের জন্য এটি প্রয়োজন। এটি কোষ বিপাকের একটি উপজাতও (যা সক্রিয়ভাবে পেরোক্সিডেস দ্বারা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়) এবং শরীরের এস্ট্রোজেন, প্রজেস্টেরন এবং থাইরক্সিন উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয়। যদি এটি পর্যাপ্ত না হত, হাইড্রোজেন পারক্সাইড রক্তে শর্করার নিয়ন্ত্রণ এবং দেহের কোষগুলিতে শক্তি উৎপাদনেও জড়িত। 6

আমাদের মধ্যে অনেকেই ক্ষত জীবাণুমুক্ত করতে ফার্মাসিতে ৩ শতাংশ গ্রেডের হাইড্রোজেন পারক্সাইড কিনে থাকেন। মধু দ্বারা উৎপাদিত হাইড্রোজেন পারক্সাইড লেভেল প্রায় এক হাজার গুণ কম যা ৩ শতাংশ হাইড্রোজেন পারক্সাইড দ্রবণে থাকে। এই কম ঘনত্ব হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডকে একটি আন্তঃকোষীয় এবং আন্তঃকোষীয় “মেসেঞ্জার” হিসাবে পরিবেশন করতে সক্ষম করতে পারে যা ফ্রি র‌্যাডিক্যালসগুলি থেকে জারণ ক্ষতির কারণে সৃষ্ট ক্ষত নিরাময়ে বিশেষ উদ্দীপনা জোগায়।

হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড এবং মধুঃ

হাইড্রোজেন পারক্সাইড প্রাকৃতিকভাবে মধুতে তৈরি করা হয় গ্লুকোজ অক্সিডেস নামক একটি এনজাইম দ্বারা, যা মৌমাছি দ্বারা উদ্ভিদের ফুলের সুধা থেকে যুক্ত হয়। সুধা থেকে মধু গঠনে সহায়তা করার জন্য গ্লুকোজ অক্সিডেস মৌমাছির হাইপো ফ্যারিংজিয়াল গ্রন্থি থেকে অমৃতের মধ্যে চলে আসে। মৌমাছির দ্বারা সুধা থেকে মধু গঠনের প্রক্রিয়া চলাকালীন হাইড্রোজেন পারক্সাইড নির্বীজনকারী এজেন্ট হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি লক্ষণীয় যে সম্পূর্ণ মধুতে হাইড্রোজেন পারক্সাইডের উপেক্ষিত মাত্রা নেই, কারণ এই পদার্থটি মধুতে রূপান্তরিত ধাতু আয়ন এবং অ্যাসকরবিক অ্যাসিডের উপস্থিতিতে অল্প, যার ফলে হাইড্রোজেন পারক্সাইড অক্সিজেন এবং পানিতে পচে যায়।

সংক্ষেপে, ক্ষতের জন্য মধু একটি শক্তিশালী ও কার্যকর এমন একটি স্তরের “ধীর মুক্তি” এন্টিসেপটিক হয়ে যায় যা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল তবে টিস্যুর ক্ষতি করে না।

অস্ট্রেলিয়ার চার্লস স্ট্রুট বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অফ বায়োমেডিকাল সায়েন্সেসের সদস্যরা মেডিক্যালি উল্লেখযোগ্য ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে মধুর ক্রিয়াকলাপ নিয়ে আর্কাইভস অফ মেডিকেল রিসার্চে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে বলেছেন: “হালকা অ্যাসিডিটি এবং নিম্ন স্তরের হাইড্রোজেন পারক্সাইড নিঃসরণ টিস্যু মেরামত উভয়কে সহায়তা করে এবং মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ক্রিয়াকলাপে অবদান রাখে। অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল ক্রিয়াকলাপ যেখানে সংক্রমণ রয়েছে সেখানে ক্ষত নিরাময়ে একটি প্রধান ভুমিকা রাখে।

ওয়াইকাটো বিশ্ববিদ্যালয়ের মধু গবেষণা ইউনিটে চালিত এক গবেষণায় ছয়টি বিভিন্ন ফুলের উৎস থেকে প্রাপ্ত আটটি মধুর নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। গবেষকরা উপসংহারে বলেছিলেন: “মধুকে ক্ষত ড্রেসিং হিসাবে ব্যবহার করে এমনকি ভারী বহনকারী ক্ষতটিতেও সহজেই বজায় রাখা যায়।”

পাস্তুরাইজেশন হাইড্রোজেন পারক্সাইড তৈরি করে এমন এনজাইমগুলিকে ধ্বংস করে, তাই চিকিৎসার জন্য যে মধু ব্যবহৃত হবে তা খাঁটি  হওয়া উচিত। একে আলো থেকে দূরে এবং শীতল জায়গায় সংরক্ষণ করা উচিত।

মধুর চিকিৎসা সম্পর্কিত আরোও পোস্ট:

১.
মধু ও শারীরিক সুস্থতা > টপিক:শারীরিক সুস্থতায় মধু গুণাগুণঃ

পর্ব-০১: https://www.facebook.com/102914111160597/posts/164428901675784/

পর্ব-০২: https://www.facebook.com/102914111160597/posts/167357614716246/

২.
মধু ও স্বাস্থ্য > টপিক:সাধারন জ্বর, ঠান্ডা, কাশি প্রতিরোধে মধুর ঔষধি গুণঃ

https://www.facebook.com/102914111160597/posts/153922509393090/

আশ শেফার মধু- বাংলাদেশের সেরা মধুঃ

আশ শেফা আপনার জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুধু খাঁটি মধুই সংগ্রহ করে না, মধুর সর্বোচ্চ মানও নিশ্চিত করে। তাই আশ শেফা মধুঘরের মধু নিঃসন্দেহে খাঁটি তো বটেই, পাশাপাশি মানের দিক থেকেও দেশ সেরা। আশ শেফার অনলাইন স্টোরে বিভিন্ন ধরণের মধু রয়েছে।  এখান থেকে বাংলাদেশের যে কোনো প্রান্ত হতে নিশ্চিন্তে খাঁটি মধু সংগ্রহ করতে পারেন। খাঁটি স্বাস্থ্যকর মধুর ক্রয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য আশ শেফার মধুর সম্পর্কে আরও যে কোনও বিস্তারিত তথ্যের জন্য অনুগ্রহ করে আশ শেফা মধুঘরের সাথে 01919442385 নাম্বারে বা অনলাইনে ashshefa.com এ যোগাযোগ করুন।

সবাইকে ধন্যবাদ। সকলের নীরোগ স্বাস্থ্য কামনায় সদা আপনার পাশেঃ
আশ শেফা মধুঘর

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Call Now Button